অভিশংসনের প্রক্রিয়ার মুখে মুগাবের পদত্যাগ

2017-11-22 আফ্রিকা

জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে অবশেষে পদত্যাগ করলেন। জিম্বাবুয়ের পার্লামেন্টে মুগাবেকে অভিশংসনের প্রক্রিয়া শুরু হয়। অভিশংসনের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পর পদত্যাগের ঘোষণা আসে মুগাবের কাজ থাকে।

এক সপ্তাহ আগে সেনাবাহিনী জিম্বাবুয়ের নিয়ন্ত্রণ নেয়। এবং গৃহবন্দী করে জিম্বাবুয়ের ৩৭ বছরের শাসক মুগাবেকে। রবার্ট মুগাবের পদত্যাগের ঘোষণা আসালে রাস্তায় নেমে উল্লাস করে দেশটির সাধারণ মানুষ।

রবার্ট মুগাবের ৯৩ বছর বয়স। দেশটির পার্লামেন্টের স্পিকার জ্যাকব মুডেন্ডা মুগাবের পদত্যাগের বিষয় নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন চিঠি পাঠিয়ে নিজের পদত্যাগের কথা জানিয়েছেন মুগাবে। মুগাবে চিঠিতে বলেন, তিনি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করছেন।

প্রেসিডেন্ট পদ ছেড়ে দেওয়ার জন্য মুগাবের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে দেশটির ক্ষমতাসীন দল জানু পিএফের প্রধানের পদ থেকে তাকে বরখাস্ত করা হয়। মুগাবে প্রেসিডেন্ট পদ ছেড়ে দিতে সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছিল। বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে পদ না ছাড়ায় অভিশংসনের প্রক্রিয়া শুরু হয়।

মুগাবের পদত্যাগের ঘোষণা আসার পর পর রাজধানী হারারের রাস্তায় নেমে আসে সাধারণ মানুষ। আগে থেকে রাজপথে অবস্থান নেওয়া সেনাসদস্যদের সঙ্গে যোগ দিয়ে উল্লাস প্রকাশ করেন তাঁরা। মুগাবের পদত্যাগের ঘোষণায় উচ্ছ্বসিত পার্লামেন্ট সদস্যরাও। পার্লামেন্ট ভবনে মুগাবের অভিশংসন নিয়ে বিতর্কের সময় পদত্যাগের ঘোষণা এলে আসন ছেড়ে দাঁড়িয়ে, হাত উঁচিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন এমপিরা।

দেশটির সেনাবাহিনীর মধ্যে বেশ জনপ্রিয় নানগাগওয়া। বরখাস্ত হওয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকায় পালিয়ে যাওয়া নানগাগওয়াও ফেরেন জিম্বাবুয়েতে। এখন সেই নানগাগওয়াকেই দেশটির পরবর্তী নেতা হচ্ছেন বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকেরা।

জিম্বাবুয়ে ১৯৮০ সালে স্বাধীনতা পায়।  ব্রিটেনের কাছ থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর থেকেই দেশটির ক্ষমতায় ছিলেন মুগাবে। মুগাবের অনেক অবদান রয়েছে জিম্বাবুয়ের  স্বাধীনতা অর্জনে। মুগাবে ক্ষমতায় টিকে থাকতে সবকিছুই করেছেন। আর এ কারণে নিজের দেশে, দেশের বাইরে তার সমালোচনা রয়েছে 



Similar Post You May Like