একবুক প্রাকিতির বাতাস নিতে কিনবা কিছু সময় শহরে জীবনকে বিদায় জানাতে চলো ঘুরে আসি

2017-10-05 বেড়ানো

চলো না ঘুরে আসি অজানাতে যেখানে নদী এসে থেমে গেছে।

শুধু নদি বা সাগর নয়, সঙ্গীর প্রতি এমন আবেদন অনেকেরই থাকে। তবে সবাই সেটা করে উঠতে পারেন না। যাব যাব করেও সময় বের করতে পারেন না অনেকে। তাঁদের জন্য এই সময়টা আদর্শ। শুধু সাহস করে বলুন, ঘুরে আসতে পারেন কাছে কিবা দূরে-শুধু দুজনে। গত কয়েক বছরে দেশের মানুষের ঘুরতে যাওয়ার প্রবণতা বেড়েছে বলে জানাচ্ছে ট্যুর অপারেটর প্রতিষ্ঠানগুলো। আর এই পর্যটকদের বড় একটা অংশ তরুণ দম্পতি।

দেশের মধ্যে কয়েক দম্পতি মিলে দল বেঁধে ঘুরতে যাওয়ার প্রবণতা আজকাল বেড়েছে। পাশাপাশি কাপলরা আলাদাভাবেও ঘুরতে যাচ্ছে নিয়মিত। অনেকেই দুই দিনের ছুটি কাজে লাগিয়ে ঘুরে আসছে।’

একটা সময় ছিল বাবা-মায়েরা অপেক্ষায় থাকতেন সন্তানদের স্কুল ছুটির জন্য। গ্রীষ্মের ছুটি বা স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষার পর মিলত ঘুরতে যাওয়ার সময়। তা-ও বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ‘দাদাবাড়ি’ বা ‘মামাবাড়ি’ পর্যন্ত। অনেকে কয়েক বছর পরিকল্পনা করে কক্সবাজার আর সুন্দরবন ঘুরে আসতেন। তবে এখন চিত্রটা আলাদা। বিশেষ করে শেষ আট-দশ বছরে চিত্রটা বড় হয়েছে। লোকজন ঘুরতে যাচ্ছে বছরের সব সময়। শুক্র ও শনিবারের সাপ্তাহিক ছুটি  এক দিনের ছুটি পেলেও অনেকে ঘুরতে যান । আবার নিরিবিলি হওয়ায় ছুটির দিনগুলোতে রিসোর্টে জায়গা দেওয়া মুশকিল হয়ে পড়ে। একটা দিন নিজেদের মতো করে কাটিয়ে আবার ফিরে যায়।’

দেশের মধ্যে কক্সবাজার, সেনমার্টিন , সুন্দরবন, রাঙামাটি বা বান্দরবানের বাইরে এখন অনেক ঘোরার জায়গা আছে। সিলেটের রাতারগুল, বিছনাকান্দি, জাফলং বা মিরসরাইয়ের খৈয়াছড়া ঝরনা—দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে ঘোরার জায়গা ।



Similar Post You May Like