চোখ ভালো রাখার উপায়

2017-10-16 স্বাস্থ্য পরামর্শ

অন্ধরা হলো এই পৃথিবীর সবচেয়ে দুঃখী মানুষ। তারাপৃথিবীর সৌন্দর্য  উপভোগ করতে পারে না। তারা জনেনা তাদের চারপাশের  রংগুলি কেমন।তাদের  চারপাশের পরিবেশ কেমন।  বিশাল এই পৃথিবীতে তারা খুবই অসহায় অন্যের সহানুভূতির উপরেই তাদের জীবন জীবিকা নির্ভর করে অসহায় জীবন কাম্য হতে পারে না কারোই ।

একটি উজ্জ্বল জীবন উজ্জল জীবনে প্রত্যাশা অবশ্যই সকলের । আর তাই উচিত নিয়মিত আমাদের  চোখের যত্ন নেওয়া। কারণ তাদের সামান্য অযত্ন এবং অবহেলার কারণেই এই মূল্যবান চোখ ধ্বংস হয়ে যেতে পারে  এমনকি  অন্ধ হতে পারে।

আসুন আজকে আমরা চোখের যত্ন সম্পর্কিত কিছু বিষয়াদি সম্পর্কে জানব

ফলওসবজিঃ

এবং সবজি চোখ ভাল রাখার জন্য খুবই কার্যকরী খাবার বিভিন্ন রকমের ফল যেমন আপেল কমলা কামরাঙ্গা জলপাই আমরা আম জাম প্রভৃতিতে মৌসুমি ফল গুলো আছে এজন্য চোখের জন্য খুবই ভালবাসতেন এগুলোর ভেতরে যে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট,  ভিটামিন-সি ভিটামিন-এ ভিটামিন বিপ্রচুর পরিমাণে থাকে এই ভিটামিনগুলো চোখের কর্নিয়া কে ভালো রাখতে সাহায্য করে ফলে চোখের দৃষ্টিশক্তি প্রখর হয় ছানি পড়ার হাত থেকে রক্ষা পায়।

চোখেজলেরঝাপটাঃ

বাইরে থেকে ঘুরে আসার পরে চোখে প্রচুর পরিমাণে ধুলাবালি জমে যায় এগুলো অবশ্যই চোখ থেকে বের করে ফেলে দেয়া উচিত আর এর জন্য চোখে নিয়মিত ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিতে হবে দিনের মধ্যে সাতপাড় চোখে ঠান্ডা পানির ঝাপটা দিতে হবে এতে করে চোখের ভিতর যে ধুলাবালি গুলো জন্মায় এগুলো বের হয়ে যাবে ফলে চোখের ভিতর কোন রকম ছত্রাকজনিত সমস্যা অথবা কোন রকম ছানি পড়ার ভয় থাকবে না চোখ সবসময় ভালো থাকবে বিভিন্ন সমস্যা থেকে কিন্তু মাথা ব্যথা  প্রকাশ পায়।

পর্যাপ্তঘুমঃ

চোখ ভালো রাখার একটি সর্বোত্তম উপায় হচ্ছে পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম পাড়াতে

সুস্থ। মানুষকে অবশ্যই তার শারীরিক মানসিক এবং চোখের প্রশান্তির জন্য আট ঘণ্টা বিশ্রাম নিতে হবে ।তা যদি না পায় সে ক্লান্ত হয়ে পড়বে, এবং তারপর  চোখের রেটিনা এবং কর্নিয়া গুলো ধীরে ধীরে মৃতপ্রায় হয়ে যাবে ফলে চোখের দৃষ্টিশক্তি কিন্তু কমতে থাকবে।

পর্যাপ্তঘুম চোখের দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখার একটি মোক্ষম কারণ।

নিয়মিতচোখপরীক্ষাঃ

চোখ ভালো রাখার  আরেকটি উপায় হচ্ছে নিয়মিত চক্ষু পরীক্ষা করা বছরে অন্তত দুই থেকে তিনবার চক্ষু বিশেষজ্ঞের মতামত অনুসারী চোখের ভাল মন্দ অবস্থা যাচাই করে নিতে হবে।



Similar Post You May Like